ভালোবাসার গল্প

বুধবার, ৬ মে, ২০২০

The Story of Bijoy











Although Bangla is the seventh most-spoken language in the world, there was no well-functioning, simple and easy-to-use software for typing in this language until the late 1980s. Understanding the need for a feasible Bangla input software and script writing interface, Mr. Mustafa Jabbar, a Bangladeshi journalist, developed software and a keyboard layout, which greatly changed the printing and publishing industry in Bangladesh. The Bijoy Bangla Software and Keyboard Layout grew popular among users, and Mr. Jabbar has benefited from intellectual property (IP) protection for his widely-used Bangla script writing interface system.




















Mr. Jabbar is from a rural village in Bangladesh and would later attend the University of Dhaka, where he majored in Bangla Language & Literature. He began his career as a journalist in 1972, while still a student. He started a computer business in 1987, but technological limitations were particularly constraining for the printing and publishing industries in Bangladesh and other Bangla-speaking regions. Mr. Jabbar considered ways to overcome the technological limitations of the Bangla script writing system in these industries. He started by creating some Bangla fonts and subsequently developing the Bangla software and a Bangla keyboard layout known as “Bijoy.”
Bijoy has established itself as one of the top Bangla script writing interface systems among a community of 350 million Bangla-speaking people. In fact, the Bijoy Keyboard Layout (BDS 1738:2018) and Bijoy Coding System (BDS 1935:2018) were declared to be the national standard Bangla Script Writing in Bangladesh, making it the only standard for Bangla script writing in the world.
Despite increasing competition from other Bangla writing systems, Mr. Jabbar’s pioneering role in the invention of the Bijoy Bangla Script Writing Interface System and promotion of information and communication technology (ICT) has been recognized by the Bangladeshi Government. In 2018, Mr. Jabbar was appointed as Minister of the Ministry of Post, Telecommunication and Information Technology in Bangladesh.

A keyboard is born

The main challenge Mr. Jabbar faced was accommodating the hundreds of Bangla characters, including additional vowels and consonants and consonant conjuncts, within a standard Macintosh keyboard in a QWERTY layout. At the time, there were already at least two other Bangla keyboard layouts: the “Munir” keyboard, which was developed in 1969 for use in typewriters; and the “ShahidLipi” which was the first complete Bangla font for computers.
Mr. Jabbar wanted to overcome many of the limitations associated with the existing options by developing a new Bangla interface with a new layout. A breakthrough came one and a half years of continuous work with the release of the first version of the Bijoy Bangla Software in 1988. The software was initially programmed by an Indian programmer named Mr. Devendra Joshi, but later developed by Mr. Jabbar’s own team of programmers in Bangladesh, while the Bangla keyboard layout and font designs were created by the inventor himself.














What’s in a name?

Mr. Jabbar believes that the success of creating the right brand name rests upon how effectively these names can touch the heart of the people and at the same time reflect the characteristics of the products. In that regard, he chose to name his software and keyboard layout “Bijoy” (Bangla for “victory”) and planned the release of the first version of Bijoy to coincide with the Victory Day of Bangladesh on December 16, 1988. Another version of Bijoy was named Bijoy Ekattor (Bijoy 71) in reference to the historical Bangladesh War of Independence of 1971.
Subsequent versions of the software have also been named in a similar fashion, including Bijoy Ekushey (Bijoy 21) and Bijoy Bayanno (Bijoy 52), commemorating February 21, 1952, an emotional date in the Bangla Language Movement, which ended in the recognition of Bangla as an official language of Bangladesh.
February 21 is not only a very important event in the history of Bangladesh and all Bangla-speaking people. In 1999, the United Nations Educational, Scientific and Cultural Organization (UNESCO) declared the date “International Mother Language Day” in tribute to the Bangla Language Movement, as part of a growing recognition of linguistic and cultural diversity around the world.















Commercialization

Soon after the development of the Bijoy Bangla Script Writing Interface System, Mr. Jabbar established his own company, Ananda Computers, and has continued to improve the system by developing new versions of the software. For example, the first version of the Bijoy Bangla Software was developed only for use on Macintosh computers, but he introduced a Windows operating system version in 1993.
One of the key points for commercialization success was the continued efforts of Mr. Jabbar and Ananda Computers to develop compatible versions of the product for all computing platforms (and later, smartphones). The creation of diversified fonts has also been important for success. A large team of programmers and designers are working continuously to further develop the product, while a service and support team handles customer service and related inquiries.
The commercialization of the Bijoy Bangla Script Writing Interface, including the IP protection they acquired, was revolutionary. Ananda Computers, led by the farsighted Mr. Jabbar, was able to correctly identify the commercial potential of his company’s IP assets. He was able to further capitalize on the value of the assets not only by selling his product, but also by licensing the Bijoy Bangla Software and Bangla Keyboard Layout, for which he is able to collect licensing fees. This achievement was made possible by IP protection.

IP assets making history

The iconic Bijoy Bangla Script Interface System was first protected as a literary work under copyright law in Bangladesh in 1989. This was the first time that software had been protected as such. Later versions were also copyrighted, including the second edition in 2004 and the third edition in 2017.
Thinking in terms of other protection opportunities, Mr. Jabbar applied to protect the second version of his software using a patent in 1992. When Mr. Jabbar applied for the patent, there was not a single person in the responsible department who could perform the substantive examination necessary to determine patentability. The patent application was not granted.
Back in our time there was no procedure to register software, but where there is a will, there’s a way.
Mustafa Jabbar, founder of Ananda Computers
Mr. Jabbar did not apply again until 2004, when an official was willing to take responsibility for the inspection. Following the submission of his application, it would take another four full years for the system to be patented. This was monumental and still holds relevance today, because Mr. Jabbar is the rights holder of the one and only software patent in Bangladesh.














Mr. Jabbar’s “Bijoy” trademark (DPDT Registration No. 87587)
Improved versions were gradually developed to overcome shortcomings of previous versions as well as to cope with newer versions of operating systems and hardware upgrades. A team of programmers under the guidance of Mr. Jabbar is dedicated to regularly improving the Bijoy Bangla Software, and any IP developed by the staff at Ananda Computers is retained by Mr. Jabbar.
In addition, Mr. Jabbar recognized the growing importance of the term, not only as the word for “victory” in Bangla, but also as the identifier of his company and the goods and services it provides. He registered a trademark for the “Bijoy” logo in Bangladesh with the Department of Patents, Designs and Trade Marks (DPDT) in 2004. The mark is applicable to Class 9 of the Nice Classification in respect of computer software and hardware products.

Licensing

Several licensing contracts have been signed between Ananda Computers and a few dozen computer vendors in Bangladesh who import keyboards from China with the Bijoy Keyboard Layout. According to the contract, the Chinese company produces and exports the printed keyboards with the Bijoy layout to Bangladesh and Mr. Jabbar’s company receives licensing fees from the vendors for each keyboard sold. There are also local keyboard producers who are interested in using the Bijoy Keyboard Layout with their hardware.

Protecting IP rights

In the mid-2000s, the popularity of the Bijoy Bangla Script Writing Interface System resulted in rampant piracy of the Bijoy Bangla Software. Mr. Jabbar took alternative means to combat the misuse of his IP, by lowering the price of his product to nearly that of the pirated products. Furthermore, he worked with vendors to sell authentic products. This has proved to be a successful model for the business.
Moreover, counterfeits of the Bijoy Keyboard Layout were increasingly imported from abroad. To protect his IP investments and brand image, Mr. Jabbar submitted a request to the National Board of Revenue (NBR) of Bangladesh concerning this matter. In 2008, after assessing the issue and confirming that Mr. Jabbar was indeed the patent owner of the Bijoy Keyboard Layout, the NBR issued a circular asking the Bangladeshi customs department to prohibit and confiscate the import of fake Bijoy goods.
I hope that if I can continue my success the example will encourage many local software developers to get patent rights and earn royalty from their products.
Mustafa Jabbar
The next enforcement opportunity occurred in 2003 when another company, Omicron Lab, developed an open source Bangla typing software “Avro” which was free of cost. Avro includes a phonetic keyboard which automatically converts words written in roman characters into Bangla characters. However, Avro also incorporated the option for another keyboard, the Unibijoy Keyboard, which essentially uses the Bijoy Keyboard Layout with a few stroke differences.
Omicron Lab did not deny the similarity; in fact they claimed that their Unibijoy Keyboard Layout was 99 percent similar to the Bijoy Keyboard Layout. Prior to releasing the Unibijoy Keyboard, Omicron Lab had contacted Mr. Jabbar for permission to use his keyboard layout, but both sides were unable to reach an agreement. Nonetheless, the developers at Omicron Lab incorporated a slightly-modified version of the Bijoy Keyboard Layout into their software.
As a consequence, Mr. Jabbar took action by informing the Copyright Registrar of Bangladesh of the infringement and requested assistance in the enforcement of his copyright. The Registrar issued a show cause notice against Omicron Lab in May 2010, which required them to appear before a court. In June 2010, the two parties reached an informal agreement for a peaceful solution under which Omicron Lab would remove the Unibijoy Keyboard from Avro. Finally, Omicron Lab removed the Unibijoy Keyboard and Mr. Jabbar withdrew the case in August 2010.

Key success factors: understanding market demand

One of the major factors behind Mr. Jabbar’s success was his understanding of what his target market needed. He was quick to realize that with the advent of computerization, there would be a growing demand for computing software in Bangla and that the market would be anything but small.
At the same time, Mr. Jabbar recognized the importance of IP, and he was aware that the sustainability and growth of his business hinged upon the due protection of his IP rights. A combination of these two factors has allowed Mr. Jabbar to retain the competitive edge of his inventions ever since the first version of the Bijoy Bangla Script Writing Interface System was released in 1988.














The progress and prosperity, the economic development of the whole world will be just what kind of intellectual property anybody has, so I think the most critical and important area of a nation is how much intellectual property they are developing. That’s the key point in the digital age, and I think that a very key point of the success of Bangladesh.
Mustafa Jabbar

সোমবার, ৪ মে, ২০২০

ভালোবাসার গল্প- মেঘকন্যা


ভালোবাসার গল্প


আজকে খুব ভাল লাগছে আমার।কারন আমি জীবনেওট্রেনে ভ্রমন করিনি আজ করব।আমাদের বাসা কুমিল্লা আর ট্রেনে করে বেড়াতে যাবো আমার খালার বাসায়উনার বাসা সিলেট।উনার বাসায় আরো অনেক বারই যাওয়া হইছে বাসে করে কিন্তু ট্রেনে করে এই প্রথম যাওয়া।আবার সিলেট শহর টা অনেক সুন্দর একটা শহর। অনেক দিন পরে খালার বাসায় যাচ্ছি তাই আজকে মনের মধ্যে অজানা এক উৎফুল্ল ও ভাললাগা কাজ করছে।




















কুমিল্লা ট্রেন স্টেশনে গিয়ে একটা টিকেট কেটে বসে আছি। দশমিনিট পরে ট্রেন আসবে।দেখতে দেখতে ট্রেন এসে গেল।আমি আমার ব্যাগ টা নিয়ে ট্রেনের মধ্যে আমার সিট খুঁজে বসে পড়লাম।আমার ভাগ্য মনে হয় ভালই ছিল। আমি যে ট্রেনে জানালার পাশে সিট পেয়েছি।একটু পরে একটা মেয়ে এসে পাশে বসল।মেয়েটা অনেক সুন্দরি ছিল।
.
ট্রেন ছেড়ে দিয়েছে ট্রেনের গতির সাথে সাথে গাছ-পালা গুলোও দুরে চলে যাচ্ছে।মাঝে মাঝে রেললাইনের
পাশের বাড়ির সামনে ছোট ছোট বাচ্চাদের হৈ চৈ দেখতে পেলাম হয়ত ট্রেন দেখে ওরাও আনন্দ পাচ্ছে।এই সব আনন্দঘন দৃশ্য গুলো দেখে অজান্তেই মনের মধ্যে অন্যরকম শিহরন বয়ে যেতে লাগল।
.
--এই ছেলে একটা কথা ছিল।
--হুম বলেন।
--কিছু মনে করবের না তো।
--না বলেন।
--আমাকে এই জানালার পাশের সিটে বসতে দিন।
--বললেই হল।এটা আমার সিট আমিই বসব।
--কই দেখি দেখি।সিটে আপনার নাম আছে নাকি।
--সিটে নাম থাকবে কেন।
--এখনি তো বললেন এটা আপনার সিট।আপনার সিট হলে তো নাম থাকবেই।
--টিকেট কেটেছি আমি এই সিটের জন্য এবার বুঝেছেন।
--হুম।বুঝলাম।দেখি টিকেটটা।
--এই যে দেখেন সিট নাম্বার।
.
বলতেই টিকেটটা ছু মেরে হাত থেকে কেড়ে নিল মেয়েটা।
.
--এবার কি হবে মিস্টার।
--আরে আরে আপনি আমার টিকেট নিলেন কেন।
--টিকেট নিয়েছি আপনাকে পুলিশে ধরিয়ে দিব।বলব আপনি বিনা টিকিটে ট্রেনে চরেছেন।
--প্লিজ এমনটি করবেন না।
--ঠিক আছে করবনা।আপনার সিটে আমাকে বসতে দিন টিকিট ফিরিয়ে দিব।
--ওকে।বসেন।
.
এই বলে আমি মেয়েটাকে আমার প্রিয় জানালার সিট ছেড়ে দিলাম আর মেয়েটা টিকেট টা দিল।মনে মনে
ভাবছি কি সাংঘাতিক মেয়েরে বাবা পুরাই ছিনতাই কারিদের মত স্বভাব।যাক বাবা জানালার পাশের সিট গেলে গেছে মিথ্যা বলে যে পুলিশে দেয় নি আল্লাহর কাছে হাজারশোকর।
.
--সরি।
--সরি কেন।
--আপনার সাথে খারাপ আচরণ করার জন্য।
--ইটস ওকে।
--আসলে আমি জানালার পাশের সিট ছাড়া বসতে পারিনা।
--ঠিক আছে।বসেন।
--আপনার নাম কি।
--জয়।আপনার।
--মিথিলা।কিসে পড়েন আপনি।
--আমি অনার্স সেকেন্ড ইয়ারে পড়ি।আপনি।
--আমি ইন্টার সেকেন্ড ইয়ারে পড়ি।আপনার বাসা কি সিলেট নাকি।
--না।কুমিল্লা। সিলেট আমার খালামনির বাসা।আপনার বাসা কোথায়।
--আমার বাসা সিলেট।কুমিল্লা আমার নানুর বাসা সেখানেই বেড়াতে গিয়েছিলাম।
--ওও।ভাল।
.
আর কথা না বলে আমার মোবাইলটা বের করে ফেসবুকে লগিন করলাম।ফেসবুকে বিভিন্ন পেজের গল্প পড়তে লাগলাম ও মাঝে মাঝে বন্ধুদের ছবিতে লাইক দিচ্ছি। মেয়েটার দিকে আরচোখে তাকিয়ে দেখলাম।মেয়েটা একদৃষ্টিতে বাহিরের দিকে তাকিয়ে প্রাকৃতির অপরুপ সৌন্দয উপভোগ করছে।
আমি আর কোন কথা বললাম না।কারন মেয়েদের সাথে আমি কথা বলতে পারিনা প্যাচ লাগাই ফেলি লজ্জা বেশি তো তাইতো।তাই কথা না বলাই উত্তম।
.
দেখতে দেখতে ট্রেন সিলেট চলে এসেছে।এখনি ট্রেন থেমে যাবে।আর একটু পরেই সবাই নেমে যাবে এই ট্রেন থেকে।প্রায় ছয় ঘন্টার এই ভ্রমন শেষে নিজেকে খুব ট্রায়াড মনে হচ্ছে।মিথিলা বলল,,বাই আশাকরি আবার দেখা হবে। আমিও বাই বলে নেমে গেলাম ট্রেন থেকে।
.
রাতে খালামনি বাসায় রাতের খাবার খেয়ে শুয়ে মোবাইলটা হাতে নিয়ে ফেসবুকে লগইন করলাম।ফেসবুকে ঢুকেই দেখি একটা ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট আসছে আইডির নাম মেঘকন্যা মিথিলা।প্রোফাইল পিকচারে একটি প্রজাপতির ছবি।প্রোফাইলের প্রজাপতিটা অনেক সুন্দর ছিল।একসেপ্ট করলাম।সাথে সাথে একটা মেসেজ আসল।
.
--হাই।
--হ্যালো।
--কি অবস্থা।
--ভাল।আপনার।
--ভাল।আমাকে কি চিনছেন।
--না তো কে আপনি।
--আমি মিথিলা।
--কোন মিথিলা।
--আরে আজ ট্রেনে কথা হয়েছিল।
--ওও।চিনেছি।কিন্তু আপনি আমার আইডির নাম কিভাবে পেলেন।
--আপনি ট্রেনে ফেসবুক চালাচ্ছিলেন তখন আপনার প্রোফাইল নাম আর পিকচার দেখিছিলাম।
--ওও।তাই।
--হুম।কি করেন।
--এই তো রাতের খাবার শেষ করে শুয়ে আছি।একটু পরে ঘুমাবো।আপনি।
--আমিও খাবার শেষ করে শুইলাম।আর ঘুমাবো।
--ওকে।শুভ রাত্রি।আবার কথা হবে।
--শুভ রাত্রি।(এই বলে ফেসবুক থেকে লগআউট করললাম)
.
প্রতিদিন মিথিলার সাথে চ্যাটিং হত।আস্তে আস্তে আমরা ভাল বন্ধু হয়ে গেলাম।তারপর দুইজন নাম্বার নিয়ে মোবাইলেও কথা হত।প্রতিদিন মোবাইলে কথা হত কেন যেন আমি মিথিলার সাথে এখন একদিন কথা না বললেই মনে হাজার বছর ধরে মিথিলার সাথে কথা হয় না।
.
আস্তে আস্তে আমি মিথিলার উপরে দুর্বল হয়ে গেলাম। কিন্তু তাকে ভালবাসি এই বলতে খুব ভয় করছে যদি সে আমাকে ছেড়ে চলে যায়।থাক বন্ধু হয়েই থাকি এতেই ভাল ছেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা নেই।
.
একদিন মিথিলা বলল সে নাকি কুমিল্লা তার নানুর বাসায় আসছে।আর সে আমাকে দেখতে চায় কত্ত দিন
হয়ে গেল আমাকে দেখেছে।সেই ট্রেন ভ্রমনে দেখেছে। আমি বলে দিলাম বিকেলে দেখা করব ইকো পার্কে।
.
আজ ভাবছি সাহস করে মিথিলাকে মনের কথা বলে দিব। যা হবার তাই হবে।তবুও আজ বলতেই হবে।কারন আমি জানি মিথিলাও আমাকে ভালবাসে।আর এটাও আমি জানি মেয়েদের বুক ফাটে কিন্তু মুখ ফাটে না।তাই মিথিলাও বলতে পারবে না।যা বলার আমিই বলতে হবে। সবাই দোয়া করবেন যেন সাহস না হারাই।(কাল্পনিক)

শনিবার, ২ মে, ২০২০

টেকনাফে পাতা খাচ্ছে নতুন পোকা, ঘাস ফড়িং না পঙ্গপাল?



টেকনাফে পাতা খাচ্ছে নতুন পোকা, ঘাস ফড়িং না পঙ্গপাল?




নতুন প্রজাতির ফড়িং গোত্রের একটি পোকার সন্ধান পাওয়া গেছে কক্সবাজারের টেকনাফে। এই পোকা বিভিন্ন গাছের পাতা বেশ দ্রুতগতিতে খেয়ে ফেলছে। ভারত ও পাকিস্তানে পঙ্গপালের উপস্থিতিতে তাই শঙ্কা তৈরি হয়, টেকনাফে হাজির হওয়া এই পোকও পঙ্গপাল কি না। দুয়েকএকজন কীটতত্ত্ববিদও একে পঙ্গপালের কোনো একটি গোত্র বলে আখ্যা দিয়েছেন। তবে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরসহ সংশ্লিষ্টরা প্রথমিকভাবে এই পোকাটিকে ঘাস ফড়িংয়ের নতুন কোনো প্রজাতি বলে মনে করছেন।

এরই মধ্যে পোকাটির নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা-নিরীক্ষার উদ্যোগ নিয়েছে অধিদফতর। বিশেষজ্ঞ কীটতত্ত্ববিদের টিমও পাঠানো হচ্ছে আক্রান্ত স্থানে। পোকাটির ভিডিও ও ছবি পাঠানো হয়েছে জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার (এফএও) সদর দফতরেও।
জানা গেছে, সম্প্রতি টেকনাফের লম্বরি নামক স্থানের একটি বাড়িতে ঝোঁপের মধ্যে নতুন এই পোকাটি দেখা গেছে। পোকাটি গাছের পাতা খেয়ে ফেলছিল। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের ভাষ্য, একটি বাড়ি বাদে পোকাটি ওই এলাকার অন্য কোনো স্থানেও দেখা যায়নি।
এদিকে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে সম্প্রতি এমন একটি ভিডিও দেখা গেছে, যেখানে একজন ব্যক্তি তার বাড়িতে নতুন এক ধরনের পোকার আক্রমণের কথা জানাচ্ছেন। লাইভ ভিডিওতে দেখা যায়, গাছের পাতা খেয়ে ফেলছিল পোকাগুলো।

জানতে চাইলে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের কক্সবাজারের উপপরিচালক মো. আবুল কাশেম সারাবাংলাকে বলেন, ‘টেকনাফে নতুন একটি পোকার সন্ধান পাওয়া গেছে। গত শনিবার (২৫ এপ্রিল) আমরা স্পটে গিয়েছি। সেখানে দুই-তিন বছর আগে একজনের একটি পোলট্রি ফার্ম ছিল। সেখানে ঝোপ-ঝাড়ে জংলি গাছ আছে। সেখানে এক ধরনের পোকার আক্রমণ দেখা গেছে। ছোট ঘাস ফড়িংয়ের চেয়েও ছোট, গোল্ডেন কালারের দাগ আছে, পাখা নেই, পাতা খায়— এমন এক ধরনের কীট।
তিনি বলেন, আমাদের উপসহকারী কর্মকর্তা সেখানে কীটনাশক স্প্রে করেছেন, পোকাগুলো মরে গেছে। কিন্তু তার মধ্যেই দুয়েকটি পোকা লুকিয়ে ছিল। অনেক খোঁজাখুঁজির পরও পোকাগুলো পাচ্ছিলাম না। পোকাগুলো দল বেঁধে এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় যায়, দল বেঁধে পাতা খায়। অনেক খোঁজাখুজির পর জঙ্গলের ভেতর (অনেকটা বনের মতো) থেকে একটি ঢালে কিছু পোকা পেয়েছি। সেগুলো অনেক চেষ্টা করে পলিথিনে প্যাকিং করেছি। অর্থাৎ পোকাগুলো স্যাম্পল সংগ্রহ করেছি। সেখানে আমরা ভিডিও-ও করেছি।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের ওই নমুনা ও ভিডিও পাঠানো হয় গাজীপুরের বঙ্গবন্ধু কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ও বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটে (বারি)। নমুনা ও ভিডিও দেখে অধ্যাপক ড. রুহুল আমিন প্রাথমিকভাবে জানিয়েছেন, এটি মরুভূমির পঙ্গপালের কোনো একটি প্রজাতি হতে পারে। আর বারি’র কীটতত্ত্ব বিভাগের প্রধান ও মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. দেবাশীষ সরকার জানান, এটি ফড়িং গোত্রের কোনো একটি প্রজাতি হতে পারে। নমুনা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার পর বিস্তারিত বলা সম্ভব হবে বলে জানিয়েছেন দুই গবেষক।
জানতে চাইলে ড. দেবাশীষ সরকার সারাবাংলাকে বলেন, ‘এই পোকাকে পঙ্গপাল বলছেন কেন? আমরা কক্সবাজারে দু’জন সিনিয়র বিজ্ঞানীকে পাঠাচ্ছি। কক্সবাজারের কর্মকর্তা (উপপরিচালক আবুল কাশেম) আমাকে ছবি ও ভিডিও পাঠিয়েছেন। তার সঙ্গে বিস্তারিত কথা হয়েছে। আমার কাছে এটিকে পঙ্গপাল মনে হয়নি। এটি ঘাস ফড়িংয়ের প্রজাতি হতে পারে।

বারি’র এই বিজ্ঞানী বলেন, এই পোকা শুধু বনে পাওয়া গেছে। কোনো ফসলে নয়। পঙ্গপাল ঝাঁকে ঝাঁকে উড়ে আসে। উপপরিচালক জানিয়েছেন, এর কোনো পাখা নেই। আর আক্রান্ত জায়গা থেকে সীমান্তওও অনেক দূরে। আপাতদৃষ্টিতে পঙ্গপালের কোনো বৈশিষ্ট্য এর মধ্যে দেখা যায়নি। ওখান থেকে আমাদের বিজ্ঞানীরা সরেজমিন দেখে আসার পর রিপোর্ট করলে এবং পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষ করলে তারপর আমরা বলতে পারব পোকাটি কোন প্রজাতির।
কৃষি সচিব নাসিরুজ্জামান সারাবাংলাকে বলেন, ‘একজন কীটতত্ত্ববিদ একে লোকাস্ট বা পঙ্গপাল হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন। তবে এটি সেরকম পঙ্গপাল নয়, এটি ঘাস ফড়িংয়ের একটি জাত। সেখানে একটি বাড়িতেই এটি দেখা গেছে। ভিডিও দেখে ওই কীটতত্ত্ববিদ এটি বলেছেন। কিন্তু ভিডিও দেখে একটি কীটকে চেনা এত সহজ নয়। তারপরও আমরা সেখানে কীটতত্ত্ববিদদের পাঠাচ্ছি। এফএও’তে আমরা ভিডিও ও ছবি পাঠিয়েছি। তারাও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছে। ফল এখনো জানায়নি। তবে সব জেনেশুনে ও তথ্য বিশ্লেষণ করে আমরা বলছি, এটি পঙ্গপাল নয়। কারণ পঙ্গপালের সব বৈশিষ্ট্য এর মধ্যে নেই।’

জানতে চাইলে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উদ্ভিদ সংরক্ষণ শাখার পরিচালক ছাব্বির বিন জাহান সারাবাংলাকে বলেন, ‘দেশের কোথাও পঙ্গপাল হানা দিয়েছে বলে আমাদের কাছে তথ্য নেই।’
জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার সহকারী রিপ্রেজেন্টেটিভ ড. নূর আহমেদ খন্দকার শুক্রবার (১ মে) বিকেলে সারাবাংলাকে বলেন, মাঠে যারা আছেন, তারা একটি ভিডিও করেছেন ও ছবি সংগ্রহ করেছেন। আমরা তা হেডকোয়ার্টারে পাঠিয়েছি। এফএও টেকনাফে কোনো প্রতনিধি পাঠাবে না। কারণ বাংলাদেশে মরুভূমির পঙ্গপাল আসেনি, আসবেও না। যেসব দেশে বছরে ২০০ মিলিলিটারের কম বৃষ্টিপাত হয়, সেখানে পঙ্গপাল বেঁচে থাকতে পারে। বাংলাদেশে বছরে ১০০০ থেকে ১২০০ মিলিলিটার বৃষ্টিপাত হয়। তাই এখানে মরুভূমির পঙ্গপাল আসার কোনো শঙ্কাই নেই।
তিনি বলেন, টেকনাফে যে পোকা পাওয়া গেছে, কোনো কোনো বিজ্ঞানী বলছেন এটি ব্যাম্বু লোকাস্ট, কেউ বলছেন কফি লোকাস্ট। তবে বেশিরভাগ বিজ্ঞানীরা মত দিয়েছেন কফি লোকাস্টের পক্ষে। তাই শষ্যখেকো পঙ্গপাল ধেয়ে আসছে— এটা বলে মানুষের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি না করাই উত্তম।
শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কীটতত্ত্ব বিভাগের প্রধান কীটতত্ত্ববিদ অধ্যাপক মিজানুর রহমান সারাবাংলাকে বলেন, টেকনাফে যে কীট পাওয়া গেছে, তা পঙ্গপাল নয়। পঙ্গপাল যে পরিবারের অন্তর্ভুক্ত, ঘাস ফড়িংও একই পরিবারের অন্তর্ভুক্ত। ঘাস ফড়িংয়ের ৫ হাজারের চেয়ে বেশি প্রজাতি আছে। এর মধ্যে ৯টি প্রজাতি লোকাস্ট বা পঙ্গপাল। পঙ্গপালগুলো একসঙ্গে দলবদ্ধ হয়ে রাক্ষুসে স্বভাবের হয়। আবার সব সময় দলবদ্ধ থাকে না। খাবারের সংকট দেখা দিলে একা চলে।
তিনি বলেন, মরুভূমির সঙ্গে পঙ্গপালের সম্পর্ক আছে। শীতকালে যেখানে বৃষ্টিপাত হয়, সেখানেই ওরা বেশি জন্ম নেয়। পঙ্গপাল বালিতে ডিম পাড়ে, বৃষ্টি পড়লে বাচ্চা জন্ম নেয়। পঙ্গপাল একসঙ্গে লাখ লাখ দল বেঁধে এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় যায়।  টেকনাফে কিছু কীট দেখা গেছে। পাহাড়ি এলাকায় এমন কীটের ক্লাস্টার দেখা যেতে পারে। সব মিলিয়ে যা দেখা গেছে, তা ঘাস ফড়িংয়ের একটি প্রজাতি বলেই মনে হচ্ছে।
এদিকে, কৃষি মন্ত্রণালয় শুক্রবার (১ মে) তাদের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলছে, টেকনাফে পাওয়া পোকাগুলো তেমন ক্ষতিকর নয় বলে ধারণা করা হচ্ছে। এসব পোকা মরুভূমির ঝাঁকে ঝাঁকে উড়ে আসা পঙ্গপাল জাতীয় পোকা নয়। এ বিষয়ে আতঙ্কিত না হতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর ও বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের কীটতত্ত্ববিদদের সমন্বয়ে উচ্চপর্যায়ের একটি দল টেকনাফের উদ্দেশে রওনা হয়েছে। পাশাপাশি বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি) ও বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিনা) থেকেও পৃথক পৃথক টিম রওনা দিয়েছে। ঘাসফড়িংয়ের মতো দেখতে লোকাস্ট গোত্রের স্থানীয় এই পোকার শনাক্তকরণসহ আক্রমণ প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও ধ্বংসে এই টিম কাজ করবে।

পঙ্গপাল কী?

পঙ্গপাল ঘাস ফড়িংয়ের একটি প্রজাতি। ঘাস ফড়িং একা থাকতে পছন্দ করলেও পঙ্গপাল দল বেঁধে উড়ে চলে। সাধারণত একেক ঝাঁকে কয়েক লাখ থেকে এক হাজার কোটি পতঙ্গও থাকতে পারে।  একটি পূর্ণ বয়স্ক পঙ্গপাল প্রতিদিন তার ওজনের সমপরিমাণ খাদ্য খেতে পারে। যে অঞ্চলে তারা আক্রমণ করে, সেখানে খাদ্য শেষ না হওয়া পর্যন্ত তারা অন্য অঞ্চলে যায় না।
সম্প্রতি অফ্রিকার কয়েকটি দেশের পর পাকিস্তান ও ভারতেও পঙ্গপালের আক্রমণ দেখা দেয়। আর চলতি বছরের প্রথম দিকে জাতিসংঘ খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এফএও) পঙ্গপাল নিয়ে একটি সতর্কতামূলক মানচিত্র প্রকাশ করে। সেখানে সোমালিয়া, ইথিওপিয়া, ইরিত্রিয়া ছাড়াও সুদান, কেনিয়া, সৌদি আরব, ইরান ও ওমানকে পঙ্গপাল আক্রান্ত দেশ হিসাবে দেখানো হয়। পাশাপাশি ভারতীয় উপমহাদেশের পাকিস্তান ও ভারতের পশ্চিমাঞ্চলে এর তীব্র আক্রমণের চিত্র দেখানো হয়। এমন পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশেও পঙ্গপালের আক্রমণ হতে পারে— এমন আশঙ্কার কথা বিভিন্ন গণমাধ্যমে উঠে আসে। তবে এফএও, কৃষি মন্ত্রণালয় ও কৃষি সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বাংলাদেশ পঙ্গপালের আক্রমণের ঝুঁকিতে নেই।

Entomologists collect samples of insects that triggered panic in Teknaf in Bangladesh



The team, led by Cox’s Bazar Department of Agricultural Expansion or DAE Deputy Director Abul Kashem, which included two officials of the United Nations Food and Agriculture Organisation’s Bangladesh unit, travelled to the house of Sohel Sikder in Lombori village, where the insects were found.
A team of entomologists from Dhaka are scheduled to visit the place on Saturday to examine the plants, said DAE deputy director.
Several days ago, hundreds of these insects swarmed and devoured the leaves of plants on Sohel Sikder’s land, sparking fears that the bugs might be locusts which eat their own body weight in food every day.

শুক্রবার, ১ মে, ২০২০

A Thai nurse's story :: ICU front line::On covid-19




The 36-year-old nurse in the intensive care ward at Bangkok's King Chulalongkorn Memorial Hospital says it's a gruelling time, but saving lives is the most important thing - along with protecting her own loved ones.
"I’m scared of getting infected and the virus leaking from the hospital," said Suparvadee, who has worked in the intensive care unit (ICU) for 14 years.
But, despite her worry, she encourages patients to have hope.
"I keep telling patients that they are not fighting alone," she said.
Suparvadee's job involves knowing every detail of each patient's condition. The novel coronavirus outbreak had also forced staff to learn a new workflow because none of them has experience with this kind of virus, she said.

 Since March 9, her hospital has treated nearly 200 coronavirus patients. Staff pride themselves on having not lost a single one.
The hospital also pays close attention to preventing infections among staff.
While fully suited in protective gear, Suparvadee guides her junior nurses on safety measures through their 12-hour shifts.
On Wednesday, Thailand reported nine new coronavirus infections but no deaths, taking its tally to 2,947 cases and 54 deaths since the outbreak began in January.
Suparvadee's husband, Udomsak Tantrarattanapong, 37, said he understood and supported her work.
"I told her to keep on fighting because whenever something new happens she gets through it just fine - and I’m sure she will this time as well," said Udomsak.